ফাংশন কী এবং তার ব্যবহার | The Uses of Function Keys |...

ফাংশন কী এবং তার ব্যবহার | The Uses of Function Keys | F1 – F12

0

ফাংশন কী এবং তার ব্যবহার | The Uses of Function Keys | F1 – F12

কীবোর্ডের একেবারে উপরে এক সারিতে F1-F12 যে কী গুলো আছে সেগুলো হলো ফাংশন কী। এদের একেক কী একেক কাজে ব্যবহার করা হয়। মূলত কম্পিউটার সহজেই অপারেট করতে এই কী গুলোর কোন বিকল্প নেই। তথাপি আমাদের এই কী গুলো সম্পর্কে অনেকের কোন ধারণা নেই, আবার অনেকেই অল্প জানেন। তাছাড়া সব ফাংশন কী আমরা সাধারনত সবসময় ব্যবহার করি না বলে ভুলে যেতে পারি। তাই আপনাদের সবার কথা চিন্তা করে সকল ফাংশন কী এর সর্বোচ্চ ব্যবহারের কথা চিন্তা করে আজকের পোস্টটি করা। আশা করি আপনাদের উপকারে আসবে।

The Uses of F1 - F12 by Computer Club BD

The Uses of F1 – F12 by Computer Club BD

F1

  • এটি হেল্প কী হিসেবে কাজ করে। যেকোন প্রোগ্রামের উইন্ডো ওপেন থাকা অবস্থায় F1 কী প্রেস করুন। তাহলে হেল্প উইন্ডো দেখতে পাবেন।
  • CMOS Setup এ ঢুকতে এ কী প্রেস করতে হয়।
  • Ctrl + F1 প্রেস করে মাইক্রোসফট অফিসের রিবন/টাস্ক প্যান শো ও হাইড করা যায়।
  • Windows Key + F1 প্রেস করলে মাইক্রোসফট উইন্ডোজ হেল্প ও সাপোর্ট সেন্টার ওপেন হবে।

F2

  • উইন্ডোজের সকল ভার্সনে ফাইল ও ফোল্ডার রিনেম করার জন্য ফাইল বা ফোল্ডার সিলেক্টেড অবস্থায় এটি প্রেস করে রিনেম করা যায়।
  • Alt + Ctrl + F2 প্রেস করে মাইক্রোসফট অফিসে ডকুমেন্ট উইন্ডো ওপেন করা যায়। যেমন আপনি পাওয়ার পয়েন্টে গিয়ে যদি এ কীগুলো প্রেস করেন তাহলে একটি উইন্ডো আসবে যার টাইটেল হলো “ওপেন”। সেটির মাধ্যমে আপনি পাওয়ার পয়েন্টের ফাইল ওপেন করতে পারবেন (অন্য ফাইল ও ওপেন করা যায়)।
  • Ctrl + F2 মাইক্রোসফট অফিসে প্রিন্ট প্রিভিউ দেখা যায়।
  • CMOS Setup এ ঢুকতে এ কী প্রেস করতে হয়।

F3

  • আপনি ডেস্কটপ হতে যদি F3 কী প্রেস করেন তাহলে সার্চ অপশন ওপেন হবে। তেমনি যেসব এপ্লিকেশানে সার্চ অপশন ব্যবহার হয় যেমন ওয়েব ব্রাউজার – F3 প্রেস করলে সার্চ অপশন আসবে। তবে এটি সব এপ্লিকেশানে সেম কাজ করে না।
  • MS-DOS বা Windows command line এ F3 প্রেস করলে লাস্ট কমান্ডটি দেখাবে।
  • Shift + F3 মাইক্রোসফট অফিসে কেস (সব গুলো আপার, সব গুলো লোয়ার, শুধু প্রতি শব্দের প্রথম লেটার বড় হাতের) চেঞ্জ করার কাজে ব্যবহার করা হয়।
  • Windows Key + F3 প্রেস করলে আউটলুকের সার্চ অপশন দেখাবে।
  • Apple computer এর Mac OS X এ Mission Control ওপেন করবে।

F4

  • উইন্ডোজ 95 হতে XP এ ফাইন্ড উইন্ডো ওপেন করবে।
  • Windows Explorer ও Internet Explorer এড্রেস বার ওপেন করবে। (ফায়ার ফক্সে বা অন্যন্য ব্রাউজারে এড্রেসবার সিলেক্ট করে F4 প্রেস করলে এড্রেস বার ওপেন হবে।
  • মাইক্রোসফট অফিসে সর্বশেষ যে কাজটি করেছেন সেটি রিপিট করবে। যেমন ব্যাকস্পেস প্রেস করার পর F4 প্রেস করলে এটি ব্যাকস্পেস এর কাজ করবে। কোন একটা লেখা একবার পেস্ট করার পর আপনি যতবার F4 প্রেস করবেন ততবার লেখাটি পেস্ট হবে ইত্যাদি।
  • Alt + F4 প্রেস করলে যে উইন্ডোটি ওপেন করা অবস্থায় থাকবে তা ক্লোজ হবে। আর ডেস্কটপ হতে এ কী দুটো প্রেস করলে শাটডাউন অপশন আসবে।
  • Ctrl + F4 প্রেস করে সাবউইন্ডো গুলো ক্লোজ করা হয়। যেমন মাইক্রোসফট ওয়ার্ডে যদি আপনি কোন ফাইল ওপন থাকা অবস্থায় এ কী দুটো প্রেস করেন তাহলে আপনার ওপেন করা ডকুমেন্টটি ক্লোজ হবে, ওয়ার্ড এপ্লিকেশনটি নয়। তেমনি ফটোশপ বা মাল্টি ডকুমেন্ট ওপেন করা যায় এমন এপ্লিকেশানে এই শর্টকাটটি কাজে আসবে।

F5

  • F5 ওয়েব ব্রাউজারের ওয়েবপেজ বা ডকুমেন্ট রিফ্রেশের কাজে করে।
  • ডেস্কটপ বা উইন্ডোজ এক্সপ্লোরারেও এটি রিফ্রেশ করার কাজ করে।
  • মাইক্রোসফট ওয়ার্ডে গো টু ট্যাব সিলেক্টের অবস্থায় ফাইন্ড, রিপ্লেস ও গো টু উইন্ডো ওপেন হবে।
  • মাইক্রোসফট পাওয়ার পয়েন্টে স্লাইড শো দেখানোর জন্য F5 কী প্রেস করতে হয়।

F6

  • ওয়েব ব্রাউজারের এড্রেস বারে কার্সর নেয়ার জন্য F6 প্রেস করতে হয়।
  • Ctrl + Shift + F6 প্রেস করে মাইক্রোসফট অফিসে (যেমন ওয়ার্ড) এক ডকুমেন্ট হতে অন্য ডকুমেন্টে টোগল করা যায়।

F7

  • মাইক্রোসফট অফিসে স্পেলিং ও গ্রামার চেক করার জন্য F7 কী প্রেস করতে হয়।
  • Shift + F7 প্রেস করলে হাইলাইটেড ওয়ার্ড (ওয়ার্ডে কার্সর থাকলেই হবে) Thesaurus চেক করবে।
  • ফায়ার ফক্সে ক্যারেট ব্রাউজিং (ওয়েব পেজে মুভেবল কার্সর ইউস করা) করা যায় F7 কী প্রেস করে।

F8

  • উইন্ডোজ স্টার্ট আপ মেনু তে যাবার জন্য F8 কী প্রেস করা হয় আর এটি সাধারণত ইউস করা হয়ে থাকে উইন্ডোজ সেফ মুডে রান করার জন্য।

F9

  • কোয়ার্ক ৫.ও এ মেজারমেন্ট টুলবার ওপেন করা যায়।
  • ম্যাক ওএস 10.3 বা পরবর্তী ভার্সনের সকল ওপেন উইন্ডো গুলো দেখায়।
  • Fn + F9 এপল কম্পিউটারের এর Mac OS X এ Mission Control ওপেন করবে।

F10

  • উইন্ডোজ বা অন্যান্য এপ্লিকেশানে মেনুবার একটিভ হয়।
  • Shift + F10 মাউসের রাইট বাটনের কাজ করে।
  • এইচপি ও সনি কম্পিউটারে হাইড করা রিকভারি পার্টিশান এক্সেস করা যায়।
  • CMOS Setup এ ঢুকতে এ কী প্রেস করতে হয়।
  • Mac OS 10.3 বা পরবর্তী ভার্সনের কোন এপস এর সকল ওপেন উইন্ডো গুলো দেখায়।

F11

  • ব্রাউজার ফুল স্ক্রীনে দেখায়।
  • Ctrl + F11 ডেল কম্পিউটারে হাইড করা রিকভারি পার্টিশান এক্সেস করা যায়।
  • ইমেশিনস, গেটওয়ে ও লেনোভো কম্পিউটারে হাইড করা রিকভারি পার্টিশান এক্সেস করা যায়।
  • Mac OS 10.4 বা পরবর্তী ভার্সনের সকল ওপেন উইন্ডো গুলো হাইড করে ডেস্কটপ দেখায়।
  • Shift + F11 মাইক্রোসফট এক্সেলে নতুন শীট এবং Ctrl + F11 ওয়ার্কবুকে নতুন ম্যাক্রো এড করে।

F12

  • মাইক্রোসফট অফিসে সেভ এস উইন্ডো ওপেন হয়।
  • অভ্রতে কীবোর্ড চেঞ্জ করার জন্য F12 ব্যবহার হয়ে থাকে(এটি পরিবর্তন যোগ্য)। সেক্ষেত্রে মাইক্রোসফট অফিসে সেভ এস উইন্ডোটি দেখায় না।
  • Shift + F12 প্রেস করলে মাইক্রোসফট অফিস এর ডকুমেন্ট সেভ করে।
  • Ctrl + Shift + F12 মাইক্রোসফট অফিসে প্রিন্ট অপশন আসে।
  • মাইক্রোসফট এক্সপ্রেশান ওয়েবে পেজ প্রিভিও করে।
  • ফায়ার বাগ ওপেন করে।
  • এপল কম্পিউটারের ম্যাক ওএস 10.4 বার পরবর্তী ভার্সনে ড্যাশবোর্ড শো ও হাইড করে।

F13 – F24 !!!

  • আগে আইবিএম কম্পিউটারে যদিও এ কী গুলো ছিল কিন্তু বর্তমানে এগুলো কীবোর্ডে থাকে না।

সর্বমোট ফাংশন কী এর ৪৮ টি ব্যবহারের কথা বলা হয়েছে। তা সত্বেও কিছু বাদ পরাটাই স্বাভাবিক। আশাকরি কাজে এসেছে। ধন্যবাদ।

SHARE

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY