ONLINE এ আয়ের কিছু পথ জেনে নিন কাজে লাগবে

ONLINE এ আয়ের কিছু পথ জেনে নিন কাজে লাগবে

0
আসসালামু আলাইকুম। সবাই কেমন আছেন? মহান রাব্বুল আলামীন এর দয়ায় ভালো আছেন অবশ্যই! আমি ও ভালো আছি। অাইটি কেয়ার ওয়াল্ড এ এটা আমার প্রথম টিউন আশা করি সবার ভালো লাগবে। যেহেতু অনলাইন আয় নিয়ে লেখা তাই আমরা অনলাইন আয়ের বিভিন্ন পদ্ধতি সম্পর্কে জানবো। তবে একটা কথা না বললেই নয় যে আমাদের সবার একটাই আশা (যারা আমরা অনলাইনে বেশীভাগ থাকি) অনলাইন থেকে আয় করা। কিন্তু এটা কিভাবে করতে হয় বা কি জানতে হয় বা কোন বিষয়ের উপর জানতে হবে নানা প্রশ্নের থাকলেও আমরা সেই সব বিষয় নিয়ে মোটেও ভাবি না।

কেননা আমরা নিজেকে একজন জ্ঞানী মনে করে সোজা কাজে নেমে পড়ি। কি ঠিক তাই তো?
তবে অনলাইনে কাজ করতে হলে আপনাকে যে কোন একটি বিষয় বেছে নিতে হবে এবং ঐ বিষয়ের উপর ভালো অভিজ্ঞ হতে হবে। যদি আপনি ওয়েব সাইট ডিজাইন এন্ড লেভেলপ এর কাজ না জানেন আর সেই কাজটাই যদি পেয়ে জান তাহলে একবার ভাবুন তো আপনি কি করবেন? হ্যা আপনি বলবেন আমার কাছে উপায় আছে আমি না জানলে কি হবে অন্যকে দিয়ে করবো! এটা অনেক ক্ষেত্রে কিন্তু এখানে একটা কথা আছে সেটা হলো সোজা বাংলায় যে খাজনার চেয়ে বাজনা বেশী। আমি বলবো আপনি কাজে নামার আগে পারদর্শী হনো এরপর কাজে নামুন।

০১। ওয়েব ডিজাইন এবং ডেভেলপঃ ওয়েব ডিজাইন এবং ডেভেলপ এর উপর বর্তমানে ফ্রিল্যান্সিং সাইটে অনেক চাহিদা। বিশেষ করে সাইট আপডেট এবং এসইও। আমি এখানে কোন সাইটের নাম উল্লেখ করলাম না। কেননা আপনারা সবাই জানেন কোন কোন সাইট থেকে আয় করা সম্ভব। ফ্রিল্যান্সি সাইটে কাজ পাওয়াটা খুব কঠিন হয়ে দাড়িয়েছে। তবে একবার যদি কাজ পেয়ে জান আর সেটা যদি খুব ভালোভাবে করে দিতে পারেন তাহলে তো কোন কথাই নেই। এর পর কাজ আপনি পাবেনই। আর অনেক দিনে হয়ে গেলে আপনার কাজের উপর বিট করার কোন প্রয়োজন নেই। কাজ আপনাকে খুজে নেবে। বর্তমানে কিন্তু সেটাই হচ্ছে। তবে এই সব ক্ষেত্রে খুব ভালো দক্ষতা থাকতে হবে। এছাড়াও আরও অনেক কাজ পাওয়া যায়।

০২। ব্লগিংঃ এটা সম্পর্কে আর কি বলবো! তারপরও আলোচনা করি কি বলেন? ব্লগিং উন্মুক্ত একটি প্লাটফর্ম। এখানে আপনি যা জানেন সবই নিজের মত করে শেয়ার করবেন। কিন্তু সেটা বাংলায় হলে হবে না। ইংরেজী হতে হবে। তবে বর্তমানে কিছু অভিজ্ঞ ভাইয়েরা আছেন যারা 2000 বা তারও বেশী টাকার বিনিময়ে অ্যাডসেন্স বিক্রি করেন। এর ফাদে কিন্তু পরবেন না। আরে আপনার ব্লগৎ যদি পপুলার হয় এবং দৈনিক 500 ভিজিটর থাকে তাহলে আপনার আয় ঠেকায় কে? দৈনিক যে টিউন করতে হবে এমন কোন কথা নেই তবে ভালো মানের কন্টেন থাকতে হবে। তাহলেই দেখবেন সোনার হরিন আপনার সামনে। তবে শেসে একটি কথা বলি আপনি যে কোন একটি বিষয় নিয়ে ব্লগিং করতে পারেন।
০৩। পিটিসিঃ আমরা পিটিসি সম্পর্কে সবাই কমবেশী জানি। তবে আমি বলবো যদি আপনার অডেল ধৈয্য থাকে তাহলে আপনি পিটিসি নিয়ে বসতে পারেন। আর আনলিমিটেড নেট তো লাগবেই। এর জন্য কোন অভিজ্ঞতার দরকার নেই। শুধু মাউস এর ক্লিক সম্পর্কে জানলেই হবে। আপনি পিটিসি সাইট থেকেও আয় করতে পারেন তবে সেটা বিশ্বস্ত সাইট হতে হবে। অনেক পিটিসি সাইট আছে যারা কাজ করার পর টাকা উঠাতে গেলে টালবাহানা করে এবং একাউন্ট পর্যন্ত ব্লগ করে দেয়। একবার ভাবুন তো 50 ডলার আয় করলেন সেটাও আবার রেফারাল লিঙ্ক এবং ক্লিক করে আর সেই টাকা্যদি আপনি না পান তহলে কেমন লাগবে? তবে পিটিসিতে না নেমে ফেসবুকে বা যে কোন সোস্যাল সাইটে লিঙ্ক শেয়াারিং করেও অনেক টাকা ইনকাম করতে পারবেন।
০৪। ফেসবুক পেজ বুষ্টঃ ফেসবুক পেজ বুষ্ট করেও আপনি আয় করতে পারেন। ধরুন আপনার একটি মাষ্টার কার্ড আছে এবং আপনি সেই কার্ড দিয়েই অন্যজনের ফেসবুক পেজ বুষ্ট করতে পারবেন। কিভাবে শুরু করবেন দেখুন তাহলেঃ আপনি নতুন একটা ফেসবুকে পেজ খুললেন যার নাম দিলেন ফেসবুক পেজ বুষ্ট এবং কিছু বন্ধুকে অ্যাড করবেন আর যাদেরকে অ্যাড করবেন তাদেরকে বলে দিবেন তারা যেন অন্যদেরকে এই গ্রুপে অ্যাড করে। তবে গ্রপে যখন একটা টিউন দিবেন ফেসবুক পেজ বুষ্ট করা হয় এটাকেই আপনি বুষ্ট করবেন। দেখবেন আপনার গ্রুপে যেভাবে মেম্বার বারবে তেমনী অনেকে  অ্যাড দিতে আসবে। কি বুঝলেন তো?

SHARE

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY