বিকাশ একাউন্ট খোলার নিয়ম দেখে নিন

বিকাশ একাউন্ট খোলার নিয়ম দেখে নিন

0

এজেন্ট থেকে কাস্টমার একাউন্ট খোলা

বিকাশ একাউন্ট খোলা সম্পূর্ণ ফ্রী এবং সহজ একটি প্রক্রিয়া।আপনার একাউন্ট খোলার সকল প্রক্রিয়া সম্পূর্ণ হবার পর আপনি বিকাশের সকল সার্ভিস ব্যাবহার করতে পারবেন । বর্তমানে সকল এয়ারটেল, বাংলালিংক, গ্রামীনফোন ও রবি গ্রাহকগণ বিকাশ একাউন্ট খুলতে পারবেন।

১। আপনার নিকটবর্তী বিকাশ এজেন্টের কাছে যান, এবং সাথে রাখুন-
ক) আপনার গ্রামীনফোণ, বাংলালিংক, রবি , অথবা এয়ারটেল সংযোগসহ মোবাইল ফোন
খ) আপনার ছবিযুক্ত পরিচয়পত্র এবং তার ফটোকপি (জাতীয় পরিচয়পত্র/ ড্রাইভিং লাইসেন্স/ পাসপোর্ট)
গ) ২ কপি পাসপোর্ট সাইজ ছবি

২। একাউন্ট ওপেনিং ফরমটি পুরন করুন এবং আপনার বৃদ্ধাঙ্গুলির ছাপ ও স্বাক্ষর দিন। এজেন্টের কাছ থেকে আপনার গ্রাহক কপিটি বুঝে নিন এবং ভবিষ্যৎ প্রয়োজনের জন্যে সংরক্ষিত রাখুন।

বিকাশ একাউন্ট খোলার পর আপনাকে আপনার বিকাশ মোবাইল মেন্যুটি একটিভেট করে নিতে হবে। আপনার মোবাইল মেন্যু একটিভেট করতে নিচের পদ্ধতি অনুসরণ করুনঃ
১। *২৪৭# ডায়েল করে বিকাশ মোবাইল মেন্যুতে যান।
২। “একটিভেট মোবাইল মেন্যু” বেছে নিন।

০৩। বিকাশ একাউন্টের জন্য ৫ ডিজিটের পিন নম্বরটি প্রবেশ করান
০৪। কনফার্ম করার জন্য আপনার পিন নম্বরটি আবার প্রবেশ করান

* আপনার পিন নম্বরটি সব সময় গোপন রাখুন

সকল প্রক্রিয়া সঠিক ভাবে সম্পন্ন হবার পর আপনার মোবাইল নম্বরটি একটি বিকাশ একাউন্ট নম্বর হিসেবে গণ্য হবে। আপনার বিকাশ একাউন্ট এর মাধ্যমে প্রাথমিক ভাবে “ক্যাশ ইন” এবং টাকা গ্রহনের সেবা ব্যবহার করতে পারবেন। তবে, আপনার KYC ফরম এর তত্থ্য যাচাই হয়ে গেলে, ৩-৫ কার্য দিবস পর আপনি “ক্যাশ আউট”, “বাই এয়ারটাইম“, “পেমেন্ট” এবং বিকাশ এর  অন্যান্য সেবা সমূহ উপভোগ করতে পারবেন। আপনার একাউন্টটি সম্পূর্ণভাবে সক্রিয় হওয়ার পর *247# ডায়াল করে দিন রাত ২৪ ঘণ্টা, সপ্তাহে ৭ দিন বিকাশের সেবা ব্যবহার করতে পারবেন।

টাকা নিরাপদে রাখার পাশাপাশি, আপনি বিকাশ একাউন্টে টাকা জমিয়ে বছরে ৪% পর্যন্ত ইন্টারেস্ট পেতে পারেন।
ইন্টারেস্ট শুধুমাত্র বিকাশ কাস্টমারের জন্য প্রযোজ্য।
ইন্টারেস্ট রেটঃ

ব্যালেন্স/স্ল্যাব (টাকা)বাৎসরিক হার
১,০০০ – ৫,০০০.৯৯১.৫%
৫,০০১ –১৫,০০০.৯৯২%
১৫,০০১ – ৫০,০০০.৯৯৩%
৫০,০০১ এবং এর অধিক৪%

উদাহরণস্বরুপ, আপনার বিকাশ  একাউন্টে যদি একটি মাসজুড়ে কমপক্ষে ১,০০০ টাকা থাকে, ঐ মাসে ২ টি লেনদেন করেন এবং ঐ মাসের গড় ব্যালেন্স যদি ১,০০০ থেকে ৫,০০০.৯৯ টাকার মধ্যে থাকে তাহলে আপনি  ঐ মাসের গড় ব্যালেন্সের উপর ১.৫% বাৎসরিক হারে ইন্টারেস্ট পাবেন।
ইন্টারেস্ট পাবার শর্তসমূহঃ

  • আপনার KYC ফরম বিকাশ কর্তৃক গৃহীত হতে হবে এবং আপনার একাউন্টটি একটিভ থাকতে হবে
  • মাসে কমপক্ষে আপনাকে ২ টি আর্থিক লেনদেন (“ক্যাশইন”, “ক্যাশআউট”, “ATM ক্যাশআউট”, “পেমেন্ট”, “ সেন্ডমানি” অথবা “বাইএয়ারটাইম”) করতে হবে
  • মাসজূড়ে  প্রতি দিনশেষে আপনার একাউন্টে কমপক্ষে ১,০০০ টাকা ব্যালেন্স থাকতে হবে
  • মাসশেষে প্রতিদিনের গড় ব্যাল্যান্সের উপর আপনার প্রাপ্ত ইন্টারেস্টের পরিমান হিসাব করা হবে
  • সরকারী নিয়ম অনুযায়ী ভ্যাট এবং ট্যাক্স কর্তন সাপেক্ষ্যে বছরে দুই দফায়  আপনার একাউন্টে ইন্টারেস্ট প্রদান করা হবে

জমানো টাকার উপর ইন্টারেস্ট

ইন্টারেস্ট সেবা চালু করাঃ
উপরোক্ত শর্ত পালনের মাধ্যমে সকল নতুন এবং পুরাতন বিকাশ কাস্টমারগণ তাদের বিকাশ একাউন্টে ইন্টারেস্ট পাবেন। সেবাটি চালু করার জন্যে কিছুই করতে হবেনা।
ইন্টারেস্ট গ্রহণ বন্ধ করাঃ
আপনার একাউন্টে ইন্টারেস্ট গ্রহণ করতে না চাইলে নীচের ধাপগুলো অনুসরণ করুনঃ

  • আপনার বিকাশ একাউন্ট নম্বর থেকে 16247 এ কল করুন
  • ভাষা নির্বাচন করুন (বাংলার জন্যে ১ এবং ইংরেজীর জন্যে ২ )
  • জমানো টাকার উপর ইন্টারেস্ট এবং অন্যান্য তথ্যের জন্য ৫ চাপুন
  • ইন্টারেস্ট সংক্রান্ত তথ্যের জন্যে ১ চাপুন
  • ইন্টারেস্ট গ্রহণ বন্ধ করতে ১ চাপুন  (সেবাটি পূর্বে বন্ধ করা থাকলে  পুনরায় চালু করতে চাইলে ২ চাপুন)
  • আপনার অনুরোধটি গৃহীত হলে আপনাকে মেসেজ এর মাধ্যমে জানিয়ে দেওয়া হবে

বিদেশে অবস্থানরত বাংলাদেশীগণ তাদের রেমিটেন্স সবচেয়ে সহজে ও বিশ্বস্ততার সাথে বিদেশে অবস্থিত তালিকাভূক্ত ব্যাংক/এক্সচেঞ্জ হাউজ সমূহের মাধ্যমে বাংলাদেশের নির্বাচিত বিকাশ একাউন্টে প্রেরণ করতে পারেন।
বিদেশ থেকে বাংলাদেশে ইন্টারন্যাশনাল রেমিটেন্স পাঠানোর জন্যে অনুগ্রহ পূর্বক নিম্নে বর্ণিত কার্যসমূহ সম্পন্ন করুনঃ
• বিদেশে অবস্থানরত আপনার নিকটবর্তী তালিকাভূক্ত ব্যাংক/এক্সচেঞ্জ হাউজে যান।
• তালিকাভূক্ত ব্যাংক/এক্সচেঞ্জ হাউজের এজেন্টকে জানান যে আপনি বিকাশ- এর মাধ্যমে বাংলাদেশে রেমিটেন্স পাঠাতে চাচ্ছেন।
• তালিকাভূক্ত ব্যাংক/এক্সচেঞ্জ হাউজের রেমিটেন্স আবেদন ফরমটিতে বিকাশ সম্পর্কিত স্থানগুলো যথাযথভাবে পূরণ করুন।
• তালিকাভূক্ত ব্যাংক/এক্সচেঞ্জ হাউজের এজেন্ট আপনাকে সম্পূর্ণ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে সাহায্য করবেন।
বিদেশ হতে আপনার রেমিটেন্স যথাযথভাবে বাংলাদেশে প্রেরনের জন্য তালিকাভূক্ত ব্যাংক/এক্সচেঞ্জ হাউজ নিম্নের  বিষয়সমূহ নিশ্চিত করবেঃ

• প্রাপকের মোবাইল নম্বরটি একটি নিবন্ধনকৃত বিকাশ একাউন্ট যা বিকাশ-এর সাথে চুক্তিবদ্ধ মোবাইল অপারেটরের নম্বর। বর্তমানে রবি, গ্রামীণফোন, বাংলালিংক অথবা এয়ারটেল নম্বর, অর্থাৎ, ০১৮, ০১৭, ০১৯ অথবা ০১৬, বিকাশ-এর চুক্তিবদ্ধ পার্টনার।
• প্রাপকের বিকাশ একাউন্ট নম্বরটি সঠিক
• একাউন্ট নম্বরটি যথাস্থানে সঠিকভাবে এবং স্পষ্টভাবে  লিখা হয়েছে
• পাঠানো মুদ্রামান বাংলাদেশী টাকায় নির্ধারিত সীমার মধ্যে আছে। *

তালিকাভূক্ত ব্যাংক/এক্সচেঞ্জ হাউজ সমূহ এবং যে দেশগুলো থেকে আপনি বাংলাদেশে রেমিটেন্স পাঠাতে পারবেনঃ 
• সংযুক্ত আরব আমিরাত
–  আল রোস্তামানি ইন্টারন্যাশনাল এক্সচেঞ্জ
–  আল আহালিয়া মানি এক্সচেঞ্জ ব্যুরো
  ওরিয়েন্ট এক্সচেঞ্জ
–  আল আনসারি এক্সচেঞ্জ
 আল ফালাহ এক্সচেঞ্জ কোম্পানি
ওয়াল স্ট্রিট ইন্সট্যান্ট ক্যাশ
মালিক এক্সচেঞ্জ

• ওমান
  মোস্তফা সুলতান এক্সচেঞ্জ কোম্পানি এলএলসি
ওমান ইউএই এক্সচেঞ্জ

• যুক্তরাজ্য

ব্র্যাক সাজান এক্সচেঞ্জ
সাউথইস্ট ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস (ইউকে) লিমিটেড

• মালয়েশিয়া

এনবিএল মানি ট্রান্সফার

• যুক্তরাষ্ট্র
• সাউথ আফ্রিকা

হ্যালো পয়সা

• সৌদি আরব

দ্রষ্টব্য: আপনার নিকটবর্তী শাখাগুলো খুঁজতে উপরোল্লিখিত ব্যাংক/এক্সচেঞ্জ হাউজগুলোর নামের উপর ক্লিক করুন।

বাংলাদেশে অবস্থিত আপনার নির্বাচিত বিকাশ একাউন্টে ইন্টারন্যাশনাল রেমিটেন্স পৌঁছানোঃ 
• বিদেশ হতে তালিকাভূক্ত ব্যাংক/এক্সচেঞ্জ হাউজ সমূহের মাধ্যমে প্রেরণ করা ইন্টারন্যাশনাল রেমিটেন্স বাংলাদেশের তফসিলীভূক্ত নিম্নে বর্ণিত ব্যাংক সমূহ গ্রহণ করে আপনার নির্বাচিত বিকাশ একাউন্টে প্রেরণ করবে:
– ব্র্যাক ব্যাংক লিমিটেড।
– সাউথ-ইষ্ট ব্যাংক লিমিটেড।
• টাকা আপনার বাংলাদেশে নির্বাচিত বিকাশ একাউন্টে পৌঁছানোর সাথে সাথে প্রাপক মোবাইল ফোনে একটি কনফার্মেশন মেসেজ পাবেন।
• উপরে বর্ণিত বাংলাদেশের নির্ধারিত যে কোন একটি তফসীলি ব্যাংক হতে আপনার নির্বাচিত বিকাশ একাউন্টে ইন্টারন্যাশনাল রেমিটেন্স পৌঁছানোর জন্যে কোন চার্জ প্রযোজ্য নয়। তবে, যেকোনো বিকাশ এজেন্ট বা ব্র্যাক ব্যাংক এটিএম থেকে এই টাকা উত্তোলনের ক্ষেত্রে বিকাশ নির্ধারিত ক্যাশ আউট চার্জ প্রযোজ্য।

ইন্টারন্যাশনাল রেমিটেন্স

বিকাশ-এর মাধ্যমে ইন্টারন্যাশনাল রেমিটেন্স পাঠানো/গ্রহণের জন্যে প্রযোজ্য লেনদেনের সীমা:
লেনদেনের ধরন
প্রতিটি লেনদেনের পরিমাণ
লেনদেনের সর্বোচ্চ পরিমাণ
ইন্টারন্যাশনাল রেমিটেন্স
সর্বনিম্ন
সর্বোচ্চ
প্রতিদিন
প্রতি মাস
   ৫০ টাকা
১৫০,০০০ টাকা
১৫০,০০০ টাকা
১৫০,০০০ টাকা

* বাংলাদেশে অবস্থিত একজন বিকাশ গ্রাহক তার বিকাশ একাউন্টে একবারে সর্বোচ্চ ১৫০,০০০ টাকা পর্যন্ত রাখতে পারবেন। উদাহরণস্বরূপ, কারো বিকাশ একাউন্টে আগে থেকেই যদি ৫০,০০০ টাকা থাকে, তাহলে আপনি তাকে বাংলাদেশী মুদ্রায় ১০০,০০০ টাকা পর্যন্ত পাঠাতে পারবেন।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY